আমি টো অঙ্ক আগেই অবসর নিতে চেয়েছিলেন। ২০০৯ এর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে, শুনুন কি বললেন শাহিদ আফ্রিদি

জাতীয় ক্রিকেট দল পাকিস্তানে যে সমালোচনা উঠে আসছিল সেই সমালোচনা স্পষ্ট উত্তর দিয়ে দিলেন পাকিস্তান  (Pakistan) ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়ক শাহিদ আফ্রিদির  (Shahid Afridi) তিনি জানান আমিতো 2009 সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলাম।

shahid-afridi His decision to leave the international cricket
shahid-afridi His decision to leave the international cricket

এক সাধুর পরামর্শে তিনি সিদ্ধান্ত থেকে সরে আছেন। এবং তিনি আরও জানান এই সমস্ত ঘটনা আর এই সমস্ত পরিস্থিতির জন্য একমাত্র দায়ী ভারতীয় টেনিস সুন্দরী নারী সানিয়া মির্জার স্বামী,

অর্থাৎ তিনি পাকিস্তানের অধিনায়ক অর্থাৎ সানিয়া মির্জার স্বামী সাহেব মালিক কে দায়ী করছেন তিনি আরো জানান সাহেব মালিক যখন পাকিস্তানের অধিনায়ক হিসাবে দলে যোগদান করেন। তখন থেকে দলের তীব্র রাজনীতি শুরু হয় এবং তোদের পরিবেশটা অত্যন্ত খারাপ হয়ে গিয়েছিল।

আমি তো একসময় ঠিক করেই নিয়েছিলাম আমি আর ক্রিকেট খেলব না, যখন 2009 সালে সাহেব মালিক দলের অধিনায়ক হন তখন টিমের মধ্যে তীব্র রাজনীতি শুরু হয়। এবং তিনি সাহেব মালিক অর্থাৎ পাকিস্তানের অধিনায়ক কে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করেন।

কিন্তু এই পরিস্থিতির সময় এক বৃদ্ধ সন্ন্যাসী আফ্রিদি কে পরামর্শ দেন খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য। এবং সেই  সন্ন্যাসী আফ্রিদিকে হযরত মুহাম্মদ এর সাথে তার কষ্টের তুলনা করে দেখতে বলে, এবং সেই সমস্ত কথাবার্তা শুনে  আফ্রিদির  (Shahid Afridi) মনে একটা চিন্তার পরিবর্তন আসে। এবং তিনি এই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছেড়ে দেবার সিদ্ধান্ত থেকে বেরিয়ে আসে। এমনটাই জানিয়েছেন তিনি তাঁর একটি সাক্ষাৎকারে।

অন্যদিকে ওই সাক্ষাৎকারে শোয়েব আখতার বলেন তিনি যে মহাম্মদ আসিফ কে ব্যাট দিয়ে মেরেছিলেন সেই প্রসঙ্গে, 2007 সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় পাকিস্তানের ড্রেসিংরুমে ব্যান্ড দিয়ে মারার অভিযোগ উঠেছিল সয়েদ আখতার বিরুদ্ধে তারপর  শোয়েব আখতার দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হয়েছিল

নিজের আত্মজীবনীতে সেই ঘটনার কথা উল্লেখ করেছিলেন ‘রাওয়ালপিণ্ডি এক্সপ্রেস’। আর এই পরিস্থিতি জটিল করে তোলার জন্য আফ্রিদিকেই দায়ি করেছেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আফ্রিদি বলেছেন, ‘আমি শোয়েবের সঙ্গে মজাই করছিলাম। আর আসিফ আমাকে সমর্থন করেছিল। এতেই শোয়েব রেগে গিয়ে এমন কাণ্ড ঘটিয়েছিল। তবে শোয়েবের মনটা কিন্তু খুবই ভাল।

Leave a Comment