বাংলাই কিষাণ সম্মান নিধির টাকা আর নয় । PM Kisan samman nidhi টাকা দেওয়া বন্ধ থাক মোদী কে চিঠি

রাজ্যে আর যাতে কিষাণ সম্মান নিধির(PM Kisan samman nidhi) টাকা না দেওয়া হয়। সেই জন্য প্রধান মন্ত্রী কে উদ্দেশ্য করে চিঠি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের।এই pm-kisan সম্মান নিধি টাকা পাওয়া নিয়ে রাজ্য কেন্দ্রের সংঘাতের আগে আমরা সকলেই দেখেছি এবং বিজেপি এটাকে ভোট চলাকালীন মানুষের সামনে তুলে ধরে, বড় ইস্যু করে তুলে ধরেন। রাজ্যের মানুষ pm-kisan এর টাকা না পাওয়ার কারণ,  রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।

PM Kisan samman nidhi
বাংলাই কিষাণ সম্মান নিধির টাকা  আর নয়( PM Kisan samman nidhi)

ভোটে জিতলে এই রাজ্যের কৃষক রা( PM Kisan samman nidhi) যে টাকা পাইনি, সেই সমস্ত বকেয়া টাকা সহ ১৮ হাজার টাকা করে দেবার কথা ছিল বিজেপির, কিন্তু বাংলাই ভোটের রেজাল্ট এর পরে বিজেপি অবস্থা খুবি খারাপ। তবে দীর্ঘ অপেক্ষার পর এই রাজ্যের কৃষক রা টাকা পেয়েছে, প্রথম দফার। কিন্তু এই টাকা পাওয়া নিয়ে, নাকি রাজ্যে দুর্নীতি এই বিরোধিতা করে বিস্ফোরক চিঠি বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে।

আর্থিক সাহায্যের ফলে বাংলায় দুর্নীতি হতে পারে এরকম মন্তব্য করে দীলিপবাবুর চিঠি,তাই তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি করেন পরবর্তী কিস্তির টাকা দেয়া বন্ধ রাখা হোক এবং তিনি বলেন কিষান সম্মান নিধি কৃষকদের লিস্ট ভালো করে খতিয়ে দেখার জন্য কেন্দ্রকে তারপরে কৃষকদের একাউন্টে টাকা পাঠানোর জন্য।
এই মন্তব্য শুনে শাসক দলের দাবি বিজেপি আবার রাজ্যে প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে।  এবং এই প্রতিহিংসার রাজনীতি জবাব মানুষ একবার দিয়েছে বিজেপিকে। মানুষ  আবার জবাব দিয়ে দেবে এই প্রতিহিংসার রাজনীতির

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এইচডি তে বিশেষভাবে চারটি আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন এবং তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশ্যে ৬ টি পরামর্শ দিয়েছে সেই পরামর্শ  আসুন দেখে নেয়া যাক।

বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রধান দাবি করেন এই কৃষক সম্মান নিধি সুবিধা পেতে প্রায় ২৩ লাখ কৃষক নির্দিষ্ট পথে গিয়ে আবেদন করেছেন যার মধ্যে প্রথম দফায়  ৭লাখ কৃষক টাকা পেয়েছেন
বাকি কৃষকদের নাম রাজ্য রাজ্যের প্রয়োজনের উদ্দেশ্যে নেননি বলে দাবি দীলিপবাবু

এছাড়াও এই চিঠিতে তিনি কাটমানি প্রসঙ্গে উল্লেখ করেছেন তার দাবি বাংলায় সুবিধা পাওয়ার জন্য কৃষকের তালিকা থেকে বাদ দিয়ে কৃষকদের টাকা ভোগ করতে চাইছেন রাজ্য সরকার।
এছাড়া দিলীপবাবু আরো বলেছেন এই প্রকল্পের জন্য আধার কার্ড বাধ্যতামূলক হলে তা বাংলার ক্ষেত্রে সঠিক সিদ্ধান্ত হবে না কারন এই রাজ্যে তৃণমূল নেতাদের সহযোগিতা অনেক বহিরাগত অনুপ্রবেশকারী বাংলা আধার কার্ড করেছে এবং তাদের কাছে আইডেন্টি প্রুফ রয়েছে।
এই সমস্ত পরামর্শ চিঠিতে লেখার পরে দীলিপবাবু লিখেছেন যে আপাতত টাকা দেয়া বন্ধ হোক কেন্দ্রের তরফ থেকে এবং সমস্ত আবেদনের নথিপত্র এবং কৃষকের আবেদনের অনলাইন পোর্টাল লিস্ট অনুযায়ী তালিকা মিলিয়ে দেখাও এবং সেই তালিকা  PM Kisan samman nidhi এর অনলাইন পোর্টালে দেওয়া হোক।

Leave a Comment